46.কাজের মহিলার ভোদা ও পুটকি মারার গল্প

হঠাৎ করে আমার চাকুরী হয়ে ঢাকা এসে মেসে উঠলাম দুই বন্ধুর কাছে। ওরা দুইজন আগে থেকেই মেসে থাকতো। সারাদিন চাকরি করে এসে বাসাই আগে চলে আসি । বাসাই একটা কাজের বুয়া দুই বেলা রান্না করে দিয়ে যায়। বন্ধুদের বাসায় ফিরতে ফিরতে রাত ৯টা বেজে যায় প্রতিদিন। সে জন্য বুয়ার রান্না করা খুব সমস্যা হয়ে পড়ছিলো, আমি সাড়ে ৫ টার পরে বাসায় আসার কারনে সবার খুব সুবিধা হল।  আসলে কোন কোন দিন দেখি বুয়াটা দাড়িয়ে আছে।

আমি দরজা খুলে দিলে বাসায় ঢুকতে পারে। বাসায় কোন টেলিভিশন ছিল না, সময় কাটে না তার উপর আবার একটা শুকনো করে মহিলা রান্না করে আর আমার ধন টনটন করে, ঠিক করলাম এই মাগিকে চুদতে হবে। রান্না ঘরে গিয়ে এটা সেটা কথা বলার ফাকে একদিন মহিলার পাছায় আমার লুংগি উচু হয়ে থাকা ধন দিয়ে একদিন খোচা দিলাম। দেখি মহিলা হাসে। আমি তো বুঝলাম কাজ হবে। রান্না ঘরেই মহিলার কাপড় তুলে আমার ধন দাড়িয়ে ঠুকানোর চেষ্টা করলাম। কাজ হল না। জানতে পারলাম ৫ বছর তার husband তাকে বাদ দিয়ে চলে গেছে। বয়স ৩৫ হবে। ভোদা খুবই টাইট। মাগিকে টেনে খাটের উপর নিয়ে ধনে একটু নারকেল তেল লাগিয়ে দিলাম একটু গুতা। আমার আবার ধনে সাইজ বলা দরকার বড় ও না আবার মাঝারি ও না এই রকম এক টা সাইজ। ধনের মাথাটা সামান্য ঢুকে গেল। অনেক দিন পর মাগিটা চুদা খায়নি তাই বাথায় সামান্য ককিয়ে উঠলো। আমি সাথে সাথে মাগির ডবকা সাইজের ব্রেস্ট দুটা বের করে চুষতে লাগলাম। যখন বুঝলাম মাগিটা মজা পেতে শুরু করেছে তখন আস্তে আস্তে ধনটা পুরা ঢুকিয়ে দিলাম। একটু পর রামঠাপ শুরু করলাম। এর মাঝে মাগিটা দুবার জল খসিয়েছে। তখন মাগিকে উপুর করে পুটকিতে নারকেল তেল লাগিয়ে ধনের মাথা আস্তে আস্তে ঢুকাতে লাগলাম । বাথায় মাগির চোখে পানি চলে আসলো তবু ও অবাক হলাম মাগিটা পুটকি মারতে দিছছে। প্রায় দশ মিনিট পুটকি মারার পর মাল বের করে দিলাম। এর পর বেশ অনেক দিন মাগিটার ভোদা আর পুটকি মেরে ছিলাম। পরে দেশে যাবার কথা বলে মাগিটা আর আসেনি।

Comments