মন্থন সাময়িকী : মার্চ এপ্রিল ২০১১

হোম পেজ

সম্পাদকীয়

পরমাণু দুঃস্বপ্ন আজও অব্যাহত

হেলেন ক্যালডিকটের সাক্ষাৎকার

দ্বিতীয় নাগাসাকি :

পরমাণু দানব থাবা বসাচ্ছে পৃথিবীর বুকে


পরমাণু শক্তি সম্পূর্ণ বর্জন করে শক্তি সমস্যার সুস্থ সমাধান করা সম্ভব


ফুকুশিমার শিক্ষা
যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা


পরমাণু স্বচ্ছতার রকমসকম


পরমাণু শক্তির নিবৃত্তি এবং

আমাদের জীবনযাপন

 

প্রতিবেদন

মানবসমাজ ও পরিবেশের ওপর

চের্নোবিল দুর্ঘটনার ফলাফল


জাপানের পরমাণু বিপর্যয়ের নিয়ে

মন্থন পত্রিকার সভা

আমাদের শক্তি ব্যবহারের কিছু নমুনা
 

সম্পাদকীয়


জোর যার মুলুক তার


ওসামা বিন লাদেনকে হত্যা করেছে মার্কিন রাষ্ট্র। এই ঘটনার মধ্য দিয়ে মার্কিন রাষ্ট্র ঘোষণা করেছে এক নয়া দস্তুর : সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ আজ এমন এক ব্যতিক্রমী বৃহত্তর উদ্দেশ্য, যার নিরিখে সার্বভৌমত্ব, দেশের সীমান্ত রক্ষা ইত্যাদি এতদিনকার আন্তর্জাতিক দস্তুর মূল্যহীন।

          কোন ঘটনার জন্য নির্দিষ্ট কাকে অভিযুক্ত করা হচ্ছে --- তার বিচার, সাক্ষ্য, প্রমাণ এসবও আজ সমান মূল্যহীন।

          আসলে এ হল এক বিশেষ চরিত্রের যুদ্ধ। আর আমরা জানি যুদ্ধে এক দেশ/পক্ষ অন্য দেশ/পক্ষের সীমানা লঙ্ঘন করে, নিজস্ব একতরফা যুক্তির জোরে অপরপক্ষকে নির্বিচারে হত্যা করে; ধ্বংসই হয়ে ওঠে তখন মহৎ এক উদ্দেশ্য।

          এই যুদ্ধ অনেক আগেই শুরু হয়েছে। ইরাক, আফগানিস্তানে আজও তা অব্যাহত। পাকিস্তানের সীমানায় ঢুকে ওয়াজিরিস্তানে চালক-বিহীন মার্কিন বিমানের ক্ষেপণাস্ত্র বর্ষণও তো বেশ কয়েক বছর ধরে নির্বিঘ্নেই চলছে।

          প্রশ্ন উঠছে, এই যুদ্ধে কি সমস্ত দেশের সমান অধিকার? কোনো অভিযুক্ত সন্ত্রাসীকে ঘায়েল করতে পাকিস্তান কি একইরকম নির্দ্বিধায় একই কায়দায় ভারতে বা আমেরিকায় ঢুকে পড়তে পারে, কিংবা ভারত পাকিস্তানে বা সৌদি আরবে?

          কিংবা হাইতির যে সন্ত্রাসবাদী মার্কিন মুলুকে আশ্রয় নিয়েছে --- যাকে হাইতি রাষ্ট্রের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য সেখানকার সরকার মার্কিন সরকারকে অনুরোধ করেও ফল পায়নি --- তাকে নিকেশ করতে হাইতির সামরিক বাহিনী কি একইভাবে নির্দ্বিধায় আমেরিকায় ঢুকে যেতে পারে?

          পারে না। পৃথিবীতে এ ব্যাপারে বহু প্রাচীন এক দস্তুর আজও কায়েম রয়েছে : জোর যার মুলুক তার।     

 

ċ
ManthanM-A2011.pdf
(549k)
Manthan Samayiki,
May 27, 2011, 7:41 PM
Comments