হোম পেজ

এই সংখ্যার হোম পেজ


দূষণ কোথায়

ঝাড়খণ্ডে খনিজ শিকার

পশ্চিমবঙ্গের ফলতায় শ্রমিক শোষণ

যুদ্ধের রূপান্তর

দেশের ভিতর যুদ্ধ বন্ধ করো


চিঠিপত্র
বিষয় : দেশের ভিতর যুদ্ধ বন্ধ করো
সম্পাদকের জবাব

দয়ামণি বারলার সঙ্গে একটি সাক্ষাৎকার


 

সম্পাদকীয়


কলিঙ্গনগরের সত্য


আবার কলিঙ্গনগরে পুলিশের গুলি চলল; নিহত হলেন ষাট বছরের বৃদ্ধ লক্ষ্মণ জামুদা। এবারের ঘটনাস্থল চান্ডিয়া গ্রাম। ২০০৬ সালের ২ জানুয়ারি ১৪ জন আদিবাসী হত্যার কেন্দ্র ছিল চম্পাকুইলা। মাঝখানে চারবছর পার হয়ে গেছে। টাটার প্রস্তাবিত ইস্পাত কারখানার জন্য জমি দখল করতে স্থানীয় আদিবাসী সমাজের ওপর এই যুদ্ধ আজও অব্যাহত।

          পুলিশ বলছে, আমরা কী করব? গ্রামবাসীরা তীর-ধনুক নিয়ে তেড়ে এসেছিল। তাই আমরা লাঠি আর রবারের বুলেট চালিয়েছি। কী আশ্চর্য ঘটনা! গ্রামবাসীরাই আক্রমণ করছে আর বারবার তারাই জীবন দিচ্ছে, আহত হচ্ছে, তাদের ঘরবাড়ি ভেঙে তছনছ হয়ে যাচ্ছে! ধন্য আমাদের নির্ভীক নিরপেক্ষ সংবাদমাধ্যম!

          কলিঙ্গনগরের ঘটনায় আর একবার প্রমাণ হল, রাষ্ট্রের ঘোষিত যুদ্ধ মাওবাদী আতঙ্ক-এর বিরুদ্ধে হলেও অঘোষিতভাবে সে যুদ্ধ জারি করেছে দেশের প্রতিরোধকামী সকল মানুষের বিরুদ্ধে; কিংবা যে কোন প্রতিবাদী মানুষের গায়েই সে হেলায় মাওবাদী ছাপ লাগিয়ে দিতে পারে।

          কিন্তু আজকের কলিঙ্গনগরের ঘটনায় এটাও প্রমাণ হল, রাষ্ট্রের পেশিশক্তি, টাটার মতো কর্পোরেট পুঁজির ধনশক্তি আর তামাম কর্পোরেট সংবাদমাধ্যমের প্রচারশক্তি হাত মিলিয়েও কলিঙ্গনগরের প্রতিরোধকে নির্মূল করতে পারেনি। টাটা, আর্সেলর মিত্তাল, রিলায়েন্স, পস্কোর আগ্রাসী পুঁজির জমি দখল অভিযান এখনও সম্পূর্ণ বিজয় অর্জন করতে পারেনি। রায়গড়, বস্তার, কলিঙ্গনগর, জগৎসিংহপুর, কেওনঝড়, গুমলা ও খুঁটির জনপ্রতিরোধ আজও অব্যাহত।

          যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদাম্বরম ২ এপ্রিল লালগড়ে এসে সংবাদমাধ্যমে ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, তিনি দেশকে ২০১৩ সালের মধ্যে মাওবাদী আতঙ্ক থেকে মুক্ত করবেন। এসব কথা সংবাদমাধ্যমকে ডেকে বলাই যায়। কিন্তু সত্যটা কি তাই? নাকি তিনি ২০১৩ সালের মধ্যে কর্পোরেট গোষ্ঠীগুলোর হাতে তাদের পছন্দ ও চুক্তি মোতাবেক দেশের প্রাকৃতিক সম্পদের ওপর দখলদারি তুলে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন?         

      প্রবীণ লক্ষ্মণ জামুদার নির্মম হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে দেশের প্রতিটি প্রান্তে বার্তা পৌঁছে গেল, কলিঙ্গনগর মরেনি।
ċ
ManthanM-A2010.pdf
(577k)
Manthan Samayiki,
Jun 3, 2010, 10:08 AM
Comments