ভাই বোনের চোদন লীলা

আমি কোনাল, ঢাকাতে একটা প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরী করি। আমার বাবা মা বরিশাল এ থাকে।আমার ছোট বোন ( ওর নাম কনা ) আমার সাথে ঢাকাতে থাকে। কারণ সে ঢাকা সিটি কলেজ এ পড়ে। সে এখন ইন্টারমিডিয়েট ফার্ষ্ট ইয়ারে পড়ে। সে দেখতে খুবই সুন্দর। আমরা ভাই বোন দুই রুম এর একটা ফ্লাট এ থাকি। কনা বাসার সব কাজ করে কলেজ এ যায়, আমি অফিসে যাই সকাল ৯টায়, অফিস সন্ধ্যা ৬.০০ টা পর্যন্ত। অফিস থেকে আমি সবসময় সরাসরি বাড়ী চলে আসি। অফিস থেকে ফেরার পর বোন আমাকে চা নাস্তা দেয়। আমরা আসলেই খুব সুখে আছি। দেশের বাড়ীতে বাবা মা ও খুব ভাল আছে। প্রতি মাসে আমি বাবা মা কে টাকা পাঠাই এবং ছুটি পেলে ভাই বোন দুইজনে বাড়ীতে যাই। একদিন যথারীতি অফিস থেকে ফেরার পথে আমার এক কলিগ আমাকে যৌন উত্তেজনা মূলক গল্পের কিছু চটি বই পড়তে দিল। রাতে খাবার পর বই গুলো পড়তে গিয়ে দেখি বেশীর ভাগ গল্পই বাবা-মেয়ে, মা-ছেলে বা ভাই-বোন এর যৌন সম্পর্ক নিয়ে লেখা। এই সব গল্প পড়ে আমার মাথা ঘুরতে লাগলো, চোখের সামনে খালি ছোট বোনের চেহারা ভাসতে লাগলো। আমি বাথরুমে গেলাম এবং ফেরার পথে বোনের রুমে উকি মারলাম। সে তখন গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন। রুমে ফিরে ভাবলাম বোনকে কিভাবে চুদা যায়, কিভাবে তাকে বস এ আনা যায় অনেক ভেবে ঠিক করলাম বোন কে আগে কৌশলে বইগুলো যেকোন ভাবেই পড়াতে হবে। চিন্তা ভাবনা করে ঠিক করলাম বইগুলা বালিশ এর নিচে রেখে যাব। বিছানা ঠিক করার সময় বইগুলো বোনের চোখে পড়বে এবং সে অবশ্যই বইগুলো পড়বে। তো পরের দিন অফিসে যাওয়ার আগে আমি বইগুলো বালিশ এর নিচে রেখে গেলাম। সন্ধ্যায় অফিস থেকে ফিরে এসে আমি আমার বালিশ উল্টিয়ে দেখলাম বইগুলো যায়গা মতোই আছে কিন্তু আমি যেভাবে রেখে গেছিলাম সে ভাবে নাই, বুঝতে পারলাম বোন বইগুলো পড়েছে। একটু পরে বোন চা নিয়ে আমার রুমে ঢুকলো আজ দেখলাম বোনের চেহারা একটু অন্যরকম লাগছে, চেহারা তে লজ্জা লজ্জা একটা ভাব।আমি বোন কে জিজ্ঞাসা করলাম কিরে তোর লেখা পড়া কেমন চলছে ? ও বলল ভালোই, তখন আমি ওকে বললাম, কাল তো অফিস বন্ধ, ভাবছি কাল তোকে নিয়ে একটু শপিং এ যাব এবং তোর জন্য কিছু জামা কাপড় কিনব। ও তখন আমাকে বলল ভাইয়া আমার জন্য না কিনে তোমার বউ এর জন্য টাকা জমাও, বিয়ে করতে হবে না? আমি তখন বললাম আগে তোকে বিয়ে দিয়ে নেই তারপর আমার বিয়ে। ও বলল আমার বিয়ের তো অনেক দেরি, ভাবী ছাড়া ততদিন তুমি থাকতে পারবা?আমি বললাম, কেন পারবো না? এই যে তুই আছিস, আমার আদর যত্ন করিসকনা : আমি তো আর তোমার বউ তোমাকে যেমন আদর করবে তেমন আদর করতে পারব নাআমি : কেন পারবি না? আমাকে তুই আদর করলেই চলবে, আপাতত আর কারও আদর না হলেও আমার চলবেকনা : ভাই তুই আমাকে এত আদর করিসআমি তখন কনাকে আমার কাছে টেনে নিয়ে জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলাম এবং কনাও আমাকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলো। পরে আমরা দুইজন রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়লাম। পরদিন বিকালে আমি কনাকে নিয়ে শপিং এর জন্য এলিফ্যান্ট রোড এ গেলাম এবং অনেক দোকান ঘুরে ওর জন্য অনেক দাম দিয়ে একটা জামা কিনলাম। জামা কেনার পর ওকে জিজ্ঞাসা করলাম ওর আর কিছু কিনতে হবে কিনা? ও বলল না, কিন্তু তার পর আমতা আমতা করতে লাগলো। আমি বললাম কিছু কিনতে হলে বল, এতো লজ্জা পাচ্ছিস কেন?ও তখন বলল, আমার কিছু আন্ডারগার্মেন্টস্ মানে ব্রা, পেন্টি এইগুলো কিনতে হবে এবং লজ্জায় লাল হয়ে রইল।আমি বললাম, এতে লজ্জার কি আছে?আমি তখন একটা আন্ডারগার্মেন্টস্ এর দোকানে ওকে নিয়ে গেলাম এবং ওকে লাল রং এর একটা পেন্টি এবং ব্রা কিনে দিলাম। এবং ভালো একটা রেষ্টুরেন্ট এ রাতের খাবার খেয়ে বাসায় ফিরলামবাসায় ফিরে আমি কনাকে বললাম, নতুন জামাটা পর তো দেখি তোকে কেমন দেখায়এরপর জামার প্যাকেটটার উপর লাল রং এর ব্রা ও পেন্টিটা রেখে ওগুলো কনার হাতে দিলাম ।কনা একটু মুচকি হেসে ওগুলো নিয়ে ওর রুমে চলে গেল।একটু পর ও আমাকে ওর রুমে ডাকলো।আমি ওর রুমে গিয়ে দেখলাম ও নতুন জামা পরে দাড়িয়ে আছে। আমি ওকে দেখে বললাম আমার বোন টা পৃথিবীর সবচেয় সুন্দর মেয়ে।ও বলল শুধু সুন্দর . . . . . ?আমি বললাম, সুন্দর ও সবচেয়ে সেক্সি মেয়ে।ও লজ্জা পেয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরলো। আমিও ওকে জড়িয়ে ধরে আদর করতে লাগলাম এবং কপালে গালে চুমো দিতে লাগলাম।তখন ও বলল, ভাইয়া সারাদিন ঘোরাঘুরি করার ফলে আমার শরীর টা ব্যাথা করছে আমি বললাম, ঠিক আছে, আমি তোর শরীর টা মালিশ করে দেই তোর ভালো লাগবেতুই আমার রুম এ আয়তখন কনা আমার রুমে এলোএবং আমি তাকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে তার পাশে বসে মাথা টিপতে লাগলামকতক্ষন পর ও বলল ভাইয়া আমার শরীর ব্যাথা করছে আর তুমি আমার মাথা টিপছ?তখন আমি তার পিঠ মালিশ করতে লাগলাম এবং আস্তে আস্তে বোনের জামার ভিতর দিয়ে হাত ঢুকিয়ে দিলামদেখলাম তার নিঃশ্বাস ঘন হয়ে আসছেতখন আমি আমার হাত টা আরও একটু এগিয়ে তার বুকের কাছে নিয়ে গেলামএবং দেখলাম বোন চোখ বন্ধ করে জোরে জোরে নিঃশ্বাস নিচ্ছেআমি তখন একটা হাত বোন এর দুধ এর উপর নেয়ে আস্তে আস্তে টিপতে লাগলামদেখি বোন উ...উ ....আ ....হ শব্দ করছে আমি তখন আস্তে করে একটা হাত তার পায়জামার উপর দিয়ে তার প্যান্টির ভতরে ঢুকিয়ে দিলাম এবং একটা আঙুল তার যোনিতে প্রবেশ করালামও তখন আর থাকতে না পেরে জোরে জোরে ও .ওওওওও... আ....আআআআ . . . .আহআহআহ করতে লাগলোআমি তখন তার পায়জামা, পেন্টি, জামা এবং ব্রা সব থুলে দিয়ে একদম নেংটা করে দিলামনিজে নেংটা হয়ে ও আমাকে নেংটা করতে ব্যাস্ত হয়ে পড়লআমার আন্ডারওয়্যার খোলার পর আমার উত্তেজিত ৮" খাড়া বাড়া দেখে ও বাক হারা হয়ে গেলবলল . . . . বাব্বাহ ..... এতো বড় আর এতো মোটা . . . .!!! তোমার বউ খুব সুখি হবেআমি বললাম, আমার বউ এর কথা তোকে ভাবতে হবে না, আপাততঃ তুই সুখি হলেই হবেও বলল, এতো মোটা !!! ঢুকবে কি করে? ব্যথা পাবো না?আমি বললাম, দূর পাগলি?এক বার নিলেই বুঝতে পারবিপ্রথম একটু ব্যাথা পাবি, তারপর আর বের করতেই চাইবি নাসে আমার বাড়াটা নিয়ে চুষতে শুরু করলো। কিছুক্ষন চোষার পর আমি আমার বাড়া বোনের যৌনাঙ্গে রেখে দিলাম এক ধাক্কা। বোন তখন হঠাৎ ব্যাথায় চিৎকার করে উঠে বলল ভাইয়া আস্তে আস্তে কর, আমি বললাম একটু সহ্য কর এখনই ভালো লাগবে এবং আমি জোরে জোরে ঠাপাতে লাগলাম। একটু পর বোনের চেহারা আনন্দে ও উত্তেজনায় উজ্জল হয়ে আসতে লাগলো এবং সে বলতে লাগলো ভাইয়া আরো জোরে ভাইয়া আরো জোরে . . . . . আগে কেন চোদাচুদি করি নাই ইত্যাদি ইত্যাদিএইভাবে প্রায় ১০ মিনিট ঠাপানোর পর আমি আমার বাড়ার রস বোনের মুখে ফেললাম, বোন আমার বাড়ার বস চেটে সাফ করে দিল। আমি বোন এর উপর পড়ে রইলাম বোনকে জড়িয়ে ধরেবোন আফসোস করে বলতে লাগলো আমি কেন আমার বাড়ার রস তার যোনি তে ফেললাম নাআমি বললাম, তুই যদি গর্ভবতি হয়ে যাস সেই ভয়েতবে কাল তোকে জন্ম নিরোধক পিল এনে দিব, তুই পিল খাসতাহলে আর মাল বাইরে ফেলতে হবে নাএরপর বাতে আমরা ভাই বোনে মিলে আরও কয়েকবার চোদাচুদি করে শুয়ে পড়লামএরপর থেকে নিয়মিত চলতে লাগলো আমাদের দুই ভাই বোনের চোদন লীলা
Comments